Home জেলা উপজেলা সুমনের প্রবাসের স্বপ্ন কেড়ে নিলো সড়ক দূর্ঘটনা

সুমনের প্রবাসের স্বপ্ন কেড়ে নিলো সড়ক দূর্ঘটনা

129

আব্দুল বারী বাবলু: ক্ষেতে খামারে কাজ করে সংসার আর চলছে না। সামান্য উপার্জনে ৬জনের মুখে তিন বেলা খাবার তুলে দেওয়া যেন দিগন্ত জোড়া এক দীর্ঘশ্বাস। এত কষ্টের মাঝেও দুচোখে স্বপ্ন ছিল অবিরত। ছেলে বড় হয়ে প্রবাসে যাবে একদিন সংসারের দায়িত্ব নিবে ,সকলের মুখে হাসি ফুটাবে। বাবার স্বপ্ন আর পুরণ করতে পারলো না গরীব বাবার অবলম্বন পূর্বচরবাটা স্কুল এন্ড কলেজের একাদশ শ্রেনীর ছাত্র মো: সুমন চৌধুরী(১৭)। আজ একটি মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনা কেড়ে নিলো সুমনের প্রবাসের স্বপ্ন।

আজ রবিবার বিকাল সাড়ে ৩টায় সোনাপুর-চেয়ারম্যান ঘাট সড়কের ভাটিরটেক নামক স্থানে একটি মাইক্রোবাসের সাথে পিছন দিক থেকে ধাক্কা লেগে এদূর্ঘটনা ঘটে। মো: সুমন চৌধুরী উপজেলার পূর্বচরবাটা স্কুল এন্ড কলেজের একাদশ শ্রেনীর ছাত্র।

নিহত মো: সুমন চৌধুরী (১৭) উপজেলার পূর্বচরবাটা ইউনিয়নের পূর্বচরবাটা গ্রামের খালেক মাঝির বাড়ির কৃষক শেখ ফরিদ এর ছেলে।

সুমন এর বাবা মো: শেখ ফরিদ জানায় , সুমন ২০১৮ সালে পূর্বচরবাটা স্কুল এন্ড কলেজ থেকে এসএস সি পাশ করে একই প্রতিষ্ঠানে একাদশ শ্রেনীতে ভর্তি হয়। পবিবারের অভাব অনটন দেখে সে আর পড়ালেখা করতে চাইছে না। তার ইচ্ছামতে তাকে প্রবাসে পাঠানোর জন্য চেষ্টা করে সৌদি আরবের একটি ভিসা পায়। ভিসা পেয়ে আজ সকালে সদরে ডাক্তারী পরীক্ষা দিয়ে সিএনজি যোগে বাড়ি ফেরার পথে চরক্লার্ক ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মো: সাহাব উদ্দিন এর মাইক্রোবাস পিছন থেকে ধাক্কা দিলে সুমন ঘটনাস্থলে মারা যাওয়ার খবর পায় আমি। আমার  সুমনকে হারিয়ে আমি আজ বড়ই নি:স্ব হয়ে গেলাম। আমার দায়িত্ব নেওয়ার আর কেউ রইল না।

প্রত্যক্ষদর্শী ও আহতদের সুত্রমতে, সোনাপুর-চেয়ারম্যানঘাট সড়েকের ভাটিরটেক নামক স্থানে মাইক্রোবাস ও সিএনজি সুবর্ণচরে আসছে। মাইক্রোবাসটি সিএনজির পিছনে ছিল। মাইক্রোবাসটি সিএনজিকে পাশ কাটতে গিয়ে  সিএনজিকে পিছন থেকে ধাক্কা দেয়। সিএনজিটি ধাক্কা খেয়ে সড়কের পাশে গাছের সাথে ধাক্কা লাগে । এতে সিএনজির সামনের আসনে থাকা সুমন ঘটনাস্থলে মারা যায়। আহতদের সঙ্গে সঙ্গে উদ্ধার করে নোয়াখালী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আহতদের মধ্যে হাতিয়া উপজেলার চানন্দী ইউনিয়নের কালাদূর গ্রামের ইভা আক্তার (১৬) এর অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত ডাক্তার ইভাকে ঢাকায় পাঠায়। অপর দুইজনও নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি আছে।

মাইক্রোবাস মালিক চরক্লার্ক ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মো: সাহাব উদ্দিন জানান, আমি সুবর্ণচরে আসছিলাম ঘটনাস্থলে পৌছালে আমার সামনে একটি পিকআপ হঠাৎ থামলে আমিও ব্রেক করি। আমার পিছন দিকে থেকে বেপরোয়া গতিতে আসা একটি সিএনজি আমার মাইক্রোর পিছনে ধাক্কা দেয়। আমি আহতের উদ্ধার করে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে গেলে ডাক্তার সুমনকে মৃত ঘোষনা করে।

সুমনের অকাল মৃত্যুতে তার পরিবার ও এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

Facebook Comments