Home জেলা উপজেলা সুবর্ণচরে আর্ন্তজাতিক শ্রমিক দিবস উদ্যাপন

সুবর্ণচরে আর্ন্তজাতিক শ্রমিক দিবস উদ্যাপন

136

আব্দুল বারী বাবলু, সুবর্নচর : আজ “পহেলা মে ”মহান আনর্Íজাতিক শ্রমিক দিবস। সারা দেশ বিদেশের ন্যায় যথাযোগ্য মর্যাদায় সুবর্ণচরেও দিবসটি উদ্যাপিত হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের উদ্দ্যোগে দিবসটি উপলক্ষ্যে র‌্যালি ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

পহেলা মে ” সকাল ১০টায় উপজেলা চত্ত্বর থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালির মধ্য দিয়ে দিবসটির কর্মসূচী শুরু হয়।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ রেজাউল করিম এর নেতৃত্বে উপজেলা চত্ত্বর থেকে সকাল ১০টায় মালিক-শ্রমিকদের নিয়ে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়ে প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন শেষে হলরুমে এসে অলোচনা সভায় মিলিত হয়।

মাধ্যমিক একাডেমিক সুপারভাইজার (শিক্ষা) মো:মিজানুর রহমান এর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো: রেজাউল করিম। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট শিল্প উদ্যোক্তা মো: আবুল কাসেম ও সহকারী মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো: জাহাঙ্গীর আলম।

উল্লেখ্য সারাবিশ্বের শ্রমজীবী মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় দিবসটি পালিত হয়ে আসছে। কলকারখানায় খেটে খাওয়া শ্রমজীবী মানুষের অধিকার আদায়ে রক্তঝরা সংগ্রামের গৌরবময় ইতিহাস রচিত হয়েছে। দীর্ঘ বঞ্চনা আর শোষণ থেকে মুক্তি পেতে ১৮৮৬ সালের আজকের এদিনে বুকের রক্ত দিয়ে ছিল শ্রমিকরা। সারা বিশ্বের শ্রমিকদের শোষণ-বঞ্চনা অবসানের স্বপ্ন দেখার দিন আজ। আজ মালিক-শ্রমিক কাদে কাদ মিলিয়ে ভেদাভেদ ভুলে যাওয়ার দিন।

আজকের এ দিনে যুক্তরাষ্ট্রের সকল শিল্পাঞ্চলে আট ঘন্টা কাজের দাবিতে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছিল শ্রমিকরা। ধর্মঘটে শিকাগো শহরে তিন লক্ষাধিক শ্রমিক কাজ বন্ধ রেখেছিল। সে দিন শ্রমিক সমাবেশকে ঘিরে শিকাগো শহর লাখো শ্রমিকের ভিক্ষোভের সমুদ্রে পরিনত হয়। লাখো লাখো শ্রমিক লাল ঝান্ডা হাতে রাস্তায় নেমে আসে এবং ভিক্ষোভ প্রর্দশন করে। একপর্যায়ে পুলিশ শ্রমিকদের উপর নির্বিচারে গুলি চালালে ১১জন শ্রমিক মারা যায়।

শ্রমিকদের ভিক্ষোভ সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। গড়ে উঠে শ্রমিক-জনতার বৃহত্তর ঐক্য। তীব্র সংগ্রামের মুখে শ্রমিকদের দৈনিক আট ঘন্টা কাজের দাবি মেনে নিতে বাদ্য হয় যুক্তরাষ্ট্র সরকার।

১৮৮৯ সালের ১৪ জুলাই প্যারিসে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় আর্ন্তজাতিক শ্রমিক সন্মেলনে শিকাগোর রক্তঝরা অর্জনকে স্বীকৃতি দিয়ে স্মারক হিসেবে পহেলা মে আর্ন্তজাতিক শ্রমিক দিবস ঘোষনা করা হয়। ১৮৯০ সাল থেকে দিবসটি বিশ্বে “মে দিবস ”পালিত হয়ে আসছে।

 

 

Facebook Comments