Home অর্থ ও বানিজ্য মিনিট প্রতি কলচার্জ ১০ পয়সা করার দাবি

মিনিট প্রতি কলচার্জ ১০ পয়সা করার দাবি

89
SHARE
Mobile Call Rate Low in bd

কলরেট বিষয়ে বিটিআরসির ভাষ্য শুনলে মনে হয়, তারা মোবাইল ফোন কোম্পানিগুলোর মুনাফা বাণিজ্যের অংশীদার বৈ কিছু নয়।’

প্রতি মিনিটে ১০ পয়সা হারে ভয়েস কলচার্জ করার দাবি জানিয়েছে ‘সিটিজেন রাইটস মুভমেন্ট’ নামে একটি সংগঠন। সম্প্রতি বিটিআরসির নির্দেশে মোবাইলের জন্য প্রতি মিনিট সর্বোচ্চ ২ টাকা এবং সর্বনিম্ন ৪৫ পয়সা ট্যারিফ নির্ধারণের প্রতিবাদের পাশাপাশি এ দাবি জানায় সংগঠনটি।

১৮ আগস্ট, শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে কলচার্জ কমানোসহ আরও ৭টি দাবি উপস্থাপন করেন সংগঠনটির নেতারা।

সংবাদ সম্মেলনে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) সমালোচনা করে বলা হয়, দেশের মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোকে ‘মানুষের গলা কেটে’ ব্যবসা করার সুযোগ করে দেওয়া হচ্ছে।

অনুষ্ঠানে সিটিজেন রাইটস মুভমেন্টের মহাসচিব তুষার রেহমান বলেন, ‘কলরেট বিষয়ে বিটিআরসির ভাষ্য শুনলে মনে হয়, তারা মোবাইল ফোন কোম্পানিগুলোর মুনাফা বাণিজ্যের অংশীদার বৈ কিছু নয়।’

সংবাদ সম্মেলনে মোবাইল ফোন অপারেটরদের বিরুদ্ধে অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসার অভিযোগ তুলে তা তদন্তের দাবি জানানো হয়। দুই দশকে মোবাইল ফোন অপারেটররা কত টাকা বিদেশে নিয়েছে, তা নিয়ে একটি শ্বেতপত্র প্রকাশেরও দাবি জানানো হয়।

এদিন সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ‘ভয়েস কলরেট বৃদ্ধির প্রতিবাদে মানববন্ধন’ অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন করে বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক অ্যাসোসিয়েশনের নেতারা।

মানববন্ধনে সংগঠনটির সভাপতি মহিউদ্দীন আহমেদ বলেন, ‘টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন গ্রাহকদের স্বার্থ বিবেচনায় না নিয়ে শুধু অপারেটরদের স্বার্থ বিবেচনা করে ভয়েস কলের ফ্লোর রেটের কলরেট ২৫ পয়সা থেকে বৃদ্ধি করে ৪৫ পয়সা নির্ধারণ করেছে।

আমরা মনে করি, এ ধরনের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করার পূর্বে গ্রাহকদের মতামত নেওয়া উচিত ছিল। কারণ বর্তমানের এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের ফলে গ্রাহকদের ব্যয় বৃদ্ধি পাবে বৈ কমবে না। এর জন্য কমিশন প্রয়োজনে গণশুনানি করতে পারত। তা না করে তাদের নেওয়া সিদ্ধান্ত গ্রাহককে মানতে বাধ্য করা একটি অগণতান্ত্রিক ও অনৈতিক সিদ্ধান্ত।’

মানববন্ধনে মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশন এর সভাপতি মহিউদ্দীন আহমেদ বলেন, টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন শুধুমাত্র অপারেটরদের স্বার্থ বিবেচনা করে ভয়েস কলের ফ্লোর রেটের কল রেট ২৫ পয়সা থেকে বৃদ্ধি করে ৪৫ পয়সা নির্ধারণ করেছে।

তিনি আরও বলেন, গণমাধ্যমে বিটিআরসি কর্মকর্তাদের বক্তব্যে জানতে পারলাম, পূর্বের ২৫ পয়সা কাগজে কলমে হলেও রেট পরতো ৩৫ পয়সার উপরে। আমরা মনে করি তাদের এ ধরণের বক্তব্য ভোক্তা অধিকার আইনের পরিপন্থী। এতে করে অপারেটরদের দুর্নীতিকে প্রকাশ্যে নিয়ন্ত্রণ কমিশন প্রশয় দিয়েছে।

মানববন্ধনে সিপিবি’র সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য রুহিন হোসেন প্রিন্স বলেন, অতিদ্রুত মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত বাতিল করে জনগণের কাছ থেকে নেয়া অতিরিক্ত অর্থ জনগণকে ফেরত প্রদানের দাবি জানাচ্ছি।

গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশনের দাবির সাথে সংহতি প্রকাশ করেন।

বাসদের কেন্দ্রীয় নেতা রাজেকুজ্জামান রতন বলেন, নতুন এই কলরেটের ফলে গ্রাহকের পকেট থেকে বছরে ৬ হাজার কোটি টাকা অতিরিক্ত আদায় করা হবে। তাই মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশনের দাবির প্রতি সংহতি জানিয়ে সরকারকে দ্রুত নতুন কলরেট বাতিল করা আহ্বান জানাই।

মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেন সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপক হুমায়ুন কবির, ন্যাশনাল কংগ্রেস বাংলাদেশের চেয়ারম্যান কাজী ছাবের আহমেদ ছাব্বীর, দুর্নীতি প্রতিরোধ আন্দোলনের সভাপতি হারুন অর রশিদ খানসহ আরও অনেকে। মানবন্ধন সঞ্চালনা করেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সদস্য কাজী আমান উল্যাহ মাহফুজ।

Facebook Comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here