Home কৃষি ও কৃষক অপরিকল্পিত খাল খনন – সুবর্ণচরে ধসে পড়েছে কাটাখালী কালভার্ট

অপরিকল্পিত খাল খনন – সুবর্ণচরে ধসে পড়েছে কাটাখালী কালভার্ট

326
SHARE

আব্দুল বারী বাবলু  : ধসে পড়েছে সুবর্ণচরের চরকার্ক ইউনিয়নে সোলেমান বাজার-আক্তার মিঞার হাট সড়কে কাটাখালী খালের উপর নির্মিত কালভার্টটি। দীর্ঘ ৫ মাস ধরে কালভার্টের দক্ষিণ অংশটি ধসে পড়ে রয়েছে। এর আগে কালভার্টের দুই পাশের সড়কের অংশ ভেঙে পড়ে ধসে পড়ার উপক্রম হয়েছিল। কর্তৃপক্ষ মেরামত করার আশ্বাস দিলেও কোনো রকম মেরামত না করায় এমন বেহাল দশা হয়েছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

স্থানীয়রা জানান, কালভার্টটি ধসে পড়ার কারনে উপজেলার চরকার্ক, হাতিয়া উপজেলার চরনাঙ্গলিয়া, চর মাকসেমুল, চর একরামউদ্দিন ও মোহাম্মদপুর সহ আশপাশের এলাকাগুলোয় যাত্রীবাহী সিএনজি, অটোরিকশা, ইজিবাইক ও মালবাহী গাড়ির যাতায়াত বন্ধ হয়ে গেছে। এতে বেশি দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে বিশাল চরে সবজি চাষী, জেলেসহ কৃষকদের। যে কোনো সময় পুরো কালভার্টটি খালের পানির ¯্রােতে ভেসে যেতে পারে বলে আশংকা করছে স্থানীয়রা।

জানা যায়, খাল সরু থাকা অবস্থায় এ কালভার্টটি নির্মিত হওয়ার ৩ বছর পর খালটি পূন: খনন করা হয়। কালভাটের চেয়ে খালের গভীরতা বেশি হওয়ায় পানির চাপে কালভার্টের নিচের ও পাশের মাটি সরে গিয়ে কালভার্টটি ধসে যায়। দীর্ঘ ৫ মাস ধরে ধসে পড়ে রয়েছে কালভার্টটি। শুধু কালভাটটি ধসে যাওয়ার কারনে খালের দুই পাশের ভাঙ্গন ধরেছে। বর্তমানে খালের ভাঙ্গনটা নদীর ভাঙ্গনের রূপ ধরছে। ইতোমধ্যে খালের দুইপাশের বসতি ও ফসলি জমি ভেঙে পড়ছে। একদিকে চরের পানি স্রোতের মতো নামছে, অপর দিকে পূর্ণ জোয়ারে মেঘনার পানি উপরের দিকে যাচ্ছে। যার কারণে খালটি মানুষের জন্য অভিশাপ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

সরেজমিন দেখা যায়, সড়কটির উপর নির্মিত কালভার্টের দক্ষিণ অংশ ডেবে গেছে। এতে কাটাখালি খালের পানি সরতে বেগ পেতে হচ্ছে। ফলে জোয়ারের সময় কালভার্টের উপর দিয়ে পানি গড়াচ্ছে। ভাঙন দেখা দিচ্ছে খালের পাড়ে। এ ছাড়া কালভার্ট ঘেষে পশ্চিম ও পূর্ব অংশের পাড়ে বড় গর্তের তৈরি হয়েছে। এখন রিকশা, বাইসাইকেল ও মোটরসাইকেল চলতেও সমস্যা হচ্ছে। এছাড়া সোলেমান বাজার এলাকায় খালের পশ্চিম অংশের সড়কটিও ভেঙে যাচ্ছে।

স্থানীয় কৃষক আব্দুর রহমান জানান, কালভার্টটি চরকার্ক ও মোহাম্মদ ইউনিয়নের একটি সংযোগ সেতু। সোলেমান বাজার-আক্তার মিয়ারহাট সড়ক ও সড়কের উপর নির্মিত কালভার্টটি এ অঞ্চলের মানুষের জন্য একটি স্বপ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছিল। চরকার্ক ইউনিয়নের সোলেমান বাজার এলাকা ও হাতিয়ার নাঙ্গলিয়া সীমান্তের কয়েক হাজার একর জমিতে বিগত কয়েক বছর পর্যন্ত সর্জন পদ্ধতিতে সবজি উৎপাদন হচ্ছিল।

মৌসুমে এসব সবজি কালভার্টটির উপর দিয়ে মোহাম্মদপুরের আক্তার মিয়ারহাট হয়ে জেলার সোনাপুর, জেলা শহর সহ দেশের বিভিন্ন জেলায় রপ্তানি হয়। চলতি মৌসুমে আমন ধান ও শীম চাষ হয়েছে। আর মাত্র ১৫-২০ দিন পর এখানকার উৎপাদিত সিম ও সিমের বীজ বের হতে শুরু করলেই বিপাকে পড়বে কৃষকরা। কালভার্টটি ধসে পড়ার কারণে উৎপাদিত পণ্য বহন খরচ বেড়ে যাবে। কারণ মালবাহী গাড়িগুলোকে অনেক দুর পথ ঘুরে যেতে হবে। খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে কালভার্টটি সংস্কার করার দাবী জানিয়েছে ভুক্তভোগি কৃষক ও স্থানীয় বাসিন্দারা।

চরকার্ক ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এডভোকেট আবুল বাশার জানান, কোনো পরিকল্পনা ছাড়াই হুট করে কাটাখালী খাল খনন করা হয়েছে। যার কারণেই আজ খালটি এ এলাকার মানুষের জন্য অভিশাপে পরিণত হয়েছে। শুধু কালভার্টটি নয় খালের পাড়ের বসতি ও সোলেমান বাজারের সড়কটির একটি অংশ ভেঙে পড়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সুবর্ণচর উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের সহকারী প্রকৌশলী মো. রউফ মোল্লা বলেন, কালভার্টটি ধসে পড়ার বিষয়ে তারা অবগত রয়েছেন। ইতোমধ্যে একটি প্রকল্প কর্তৃপক্ষকে পাঠানো হয়েছে। সেটি পাশ হয়ে এলেই নতুন করে কালভার্ট নির্মাণ করা হবে।

Facebook Comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here